jagannathpurpotrika-latest news

আজ, ,

সর্বশেষ সংবাদ
«» ছাতকে ২ এতিম শিশুকে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল «» বিএনপি নেতা ফয়সল চৌধুরীর সঙ্গে গোলাপগঞ্জ পৌর বিএনপির সাক্ষাত «» ছাতকে ইসলামপুর ইউনিয়নকে একটি আদর্শ ও সমৃদ্ধশালী ইউনিয়ন গড়তে চান মাওঃ আকিক হোসেন «» নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৪ জন ছুরিকাহত «» জগন্নাথপুরে যুবদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন «» বিশ্বকাপ ইতিহাসে যে ঘটনা বিরল «» ওসমানীনগরে চালককে অজ্ঞান করে খাদে ফেলে টমটম ছিনতাই «» দোয়ারাবাজারে এক স্কুল ছাত্রী যৌন নির্যাতনের শিকার «» জগন্নাথপুরে ইসলামী সমাজ কল্যান পরিষদের অভিষেক অনুষ্ঠান ও কার্যালয়’র ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন সম্পন্ন «» পায়রা সেতু ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ৬ লেন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

বিশ্বকাপ ইতিহাসে যে ঘটনা বিরল

স্পোর্টস ডেস্ক :: ১০ উইকেটে জয় – তা সেটা ৫ ওভারেই হোক বা ১৮ ওভারে, যে কোনো দলের জন্য কৃতিত্বের বিষয়। আর বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে হলে তো কথাই নেই। সেটা অত্যন্ত গর্বের বিষয়। ২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও ১০ উইকেটের জয়ের সাক্ষী হয়েছে ক্রিকেট বিশ্ব। শুধু একবার নয়, দু’বার। একই টুর্নামেন্টে দু’বার এমন ঘটনা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে বিরল। চলুন দেখে নেওয়া যাক ১০ উইকেটে জয়ের ঘটনাগুলো ১৭ অক্টোবর, ২০২১; ভেন্যু: আল আমেরাত ক্রিকেট অ্যাকাডেমি, ওমান পাপুয়া নিউগিনি ১২৯/৯ (২০ ওভার), ওমান ১৩০/০(১৩.৪); ফল: ওমান ১০ উইকেটে জয়ী এবারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই ইতিহাস গড়েছে ওমান। অধিনায়ক জিসান মাকসুদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে (৪-০-২০-৪) নির্ধারিত ২০ ওভারে পাপুয়া নিউগিনির সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯ উইকেটে ১২৯।
জবাবে দুই ওপেনারের অপরাজিত ফিফটিতে (জতিন্দর সিং: ৪২ বলে ৭৩, আকিব ইলিয়াস: ৪৩ বলে ৫০) ৩৮ বল হাতে রেখেই গন্তব্যে পৌঁছে যায় স্বাগতিকেরা।

 

২৪ অক্টোবর, ২০২১, ভেন্যু: দুবাই, সংযুক্ত আরব আমিরাত
ভারত ১৫১/৭ (২০ ওভার), পাকিস্তান ১৫২/০(১৮.৫)
ফল: পাকিস্তান ১০ উইকেটে জয়ী। পাকিস্তানের কাছে ম্যাচটি ছিল ‘শাপমোচনের’। কারণ ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ইতিহাসে পাঁচবারের পাঁচটিতেই পরাজিত দলটা যে পাকিস্তান!

আর পাশার দান কত সুন্দরভাবেই না উল্টে দিলেন বাবর আজম-মোহাম্মদ রিজওয়ানরা! ভারতের দেওয়া ১৫২ রানের লক্ষ্য কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৩ বল আগেই টপকে যায় পাকিস্তান।
শুধু এবারের বিশ্বকাপের ঘটনা দুটোই নয়, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এমন ঘটনা ঘটেছে আরও দুবার। কাকতালীয়ভাবে দুটোরই তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর, মাঝখানে শুধু পাঁচ বছরের সময় ব্যবধান।

২০ সেপ্টেম্বর, ২০০৭; ভেন্যু: কেপটাউন,দক্ষিণ আফ্রিকা
শ্রীলঙ্কা: ১০১ অলআউট (১৯.৩ ওভার)
অস্ট্রেলিয়া: ১০২/০ (১০.২); ফল: অস্ট্রেলিয়া ১০ উইকেটে জয়ী।

সেমিফাইনালে যেতে দু’দলের জন্য ম্যাচটি ছিল ‘ডু-অর-ডাই’ ম্যাচ। কেপটাউনে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়ান দলপতি অ্যাডাম গিলক্রিস্ট। গিলক্রিস্টের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করে অস্ট্রেলিয়ান বোলাররা তিন বল আগেই লঙ্কানদের গুটিয়ে দেয় ১০১ রানে।
১০২ রান তাড়া করতে নেমে ওপেনারদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে (অ্যাডাম গিলক্রিস্ট: ২৫ বলে ৩১*, ম্যথ্যু হেইডেন: ৩৮ বলে ৫৮) ৫৮ বল হাতে রেখেই সেমিফাইনালের টিকিট কেটে ফেলে অস্ট্রেলিয়া।
২০ সেপ্টেম্বর, ২০১২; ভেন্যু: হাম্বানতোতা, শ্রীলঙ্কা
জিম্বাবুয়ে: ৯৩/৮ (২০ ওভার), দক্ষিণ আফ্রিকা: ৯৪/০ (১২.৪); ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ উইকেটে জয়ী। সুপার এইটে যেতে জিম্বাবুয়ের জন্য ম্যাচটি ছিল ‘ডু অর ডাই’ ম্যাচ। হাম্বানতোতায় টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় এবি ডি ভিলিয়ার্সের দক্ষিণ আফ্রিকা। জ্যাক ক্যালিসের দুর্দান্ত বোলিংয়ে (৪-১-১৫-৪) নির্ধারিত ২০ ওভারে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৮ উইকেটে ৯৩।জবাবে দুই ওপেনারের ধীরস্থির ব্যাটিংয়ে (রিচার্ড লেভি: ৪৪ বলে ৫০*, হাশিম আমলা: ৩৩ বলে ৩২*) ৪৪ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় প্রোটিয়ারা।