jagannathpurpotrika-latest news

আজ, ,

সর্বশেষ সংবাদ
«» দরিদ্র পরিবারে এম এ সাত্তার ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার বিতরণ «» যুক্তরাজ্য বিএনপির সহ-সভাপতি এম এ সাত্তারের ঈদের শুভেচ্ছা «» উম্মাহ হেন্ডস ইউকে’র পক্ষথেকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অসহায়দের মাঝে ত্রান ও অর্থ বিতরণ «» জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান প্রার্থী সৈয়দ তালহা আলমের ঈদের শুভেচ্ছা «» ছাতকে গলায় ওড়না পেছানো অবস্থায় লাশ উদ্ধার «» জগন্নাথপুরে লাইসিয়াম কিন্ডারগার্টেন স্কুল’র পক্ষ থেকে ঈদ উপলক্ষে নগদ ২ লক্ষ টাকা বিতরণ «» নবীগঞ্জে অর্থ বিতরণ করলেন সাংসদ মিলাদ «» প্রবাসীরা দেশে অবদান রেখে ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন- এমপি মোকাব্বির খান «» জগন্নাথপুরে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় দোয়া ও ইফতার মাহফিল «» শ্রীমঙ্গলে প্রবাসীকে হয়রানীর অভিযোগ: ইউপি চেয়ারম্যান সুফি মিয়ার প্রত্যাখ্যান



তারাবিতে ২০ জনের বেশী মুসল্লি নয়

ডেস্ক রিপোর্ট :: মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি এবং পবিত্র রমজানে তারাবির নামাজে খতিব, ইমাম, হাফেজ, মুয়াজ্জিন ও খাদিমসহ সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশ নিতে পারবেন। ১৪ এপ্রিল থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত সোমবার (১২ এপ্রিল) ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে এই নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।
এতে স্বাস্থ‌্যবিধি মেনে ৫টি নির্দেশনা মেনে মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, জুমা এবং তারাবির নামাজ আদায় করতে বলা হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদের একসপ্তাহের কঠিন লকডাইনের নির্দেশনার আলোকে পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস ভয়াবহ মহামারি আকার ধারণ করায় যথাযথ সুরক্ষা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বর্তমান পরিস্থিতিতে আগামী ১৪ এপ্রিল হতে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত মসজিদে নামাজ আদায়ে নিম্নোক্ত নির্দেশনা জারি করা হলো।

 

১. মসজিদে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের প্রতি ওয়াক্তে সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশ নিতে পারবেন।

 

২. তারাবির নামাজে খতিব, ইমাম, হাফেজ, মুয়াজ্জিন ও খাদিমসহ সর্বোচ্চ ২০ জন মুসল্লি অংশ নিতে পারবেন।

 

৩. জুমার নামাজে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুসল্লিরা অংশ নিবেন।

 

৪. মুসল্লিদের পবিত্র রমজানে তিলাওয়াত ও যিকিরের মাধ্যমে মহান আল্লাহর রহমত ও বিপদ মুক্তির জন্য দোয়া করার অনুরোধ করা হলো।

 

৫. প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে স্থানীয় প্রশাসন, আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সংশ্লিষ্ট মসজিদের পরিচালনা কমিটিকে উল্লিখিত নির্দেশনা বাস্তবায়ন করার জন্য অনুরোধ জানানো হলো।