jagannathpurpotrika-latest news

আজ, ,

সর্বশেষ সংবাদ
«» আইনজীবী তালিকাভুক্তির লিখিত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা «» গোলাপগঞ্জে আওয়ামীলীগের মতবিনিময় সভা «» জগন্নাথপুরে আ.লীগ নেতার হামলার শিকার বিধবা মহিলা, বসত ঘরে ভাংচুর ও হত্যার হুমকী «» ছাতকে খেলাফত মজলিসের জরুরি দায়িত্বশীল বৈঠক অনুষ্ঠিত «» সিলেটে অনৈতিক কর্মকান্ড থেকে স্ত্রীকে ফেরাতে না পেরে হত্যা «» দক্ষিণ সুরমায় একটি প্রতিষ্ঠানকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা «» সিলেটে গৃহবধূ হত্যায় গ্রেফতার ১ «» মাওলানা যোবায়ের আহমদ চৌধুরীর বর্ণাঢ্য জীবন ও কর্ম «» জগন্নাথপুরে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জন্মদিন উদযাপন «» গোলাপগঞ্জে শাক চাষ নিয়ে বাকবিতন্ডা : স্বামীর হাতে স্ত্রী খুন



আকবরের সাথে চিকিৎসকেরও বিচার চাইলেন রায়হানের মা

জেএসবি টুয়েন্টিফোর :: ‘আকবর গ্রেপ্তার হয়েছে এতে আমরা খুশি আছি। কিন্তু আমারা তো আমার রায়হানরে ফিরিয়া পাইতাম নায় ঠিক। আকবরের বিচারটা এমনভাবে হউক জনতার সামনে, রাজপথে, কোর্টের সামনে। এখানে বিচার হোক। জনতা দেখুক আকবরের বিচার। আকবরের সাথে যারা যারা জড়িত আছে সবাইকে ধরে শাস্তি দেওয়া হোক।’ কথাগুলো সিলেটে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে নিহত রায়হান আহমদের মা সালমা বেগমের।

 

পুত্র রায়হান আহমদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত পুলিশের উপ পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁইয়া গ্রেপ্তারের খবর শুনে সন্তুষ্টি প্রকাশের পাশাপাশি ঘটনায় জড়িত সকলের শাস্তি দাবি করে সোমবার বিকেলে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন সালমা বেগম।

 

রায়হানের মা বলেন, ‘ঘটনার পর মেডিকেলের ডাক্তার বার বার আমার ছেলের কথা বানিয়েছিল। একবার বলেছিল এক্সিডেন্ট, একবার বলেছিল গনধোলাই। একবার বলেছিল স্ট্রোক। এই যে আমরা সাধারণ জনগণ, সাধারণ মানুষ ডাক্তারের কাছে যাই। সুষ্ঠু চিকিৎসার জন্য। কিন্তু এই ডাক্তার বেইমান আকবরের সাথে হাত মিলিয়ে আমার ছেলে রায়হানের ব্যাপারে অনেক কথা বলেছে। এইরকম আকবের সাথে ডাক্তারও জড়িত। ডাক্তারের বিচারটা হোক।’

 

আকবরের সঙ্গে তার সকল সহযোগীরও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি।

 

এদিকে ঘটনার প্রায় ২৮ দিন পর সোমবার সকালে কানাইঘাট উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ ইউনিয়নের ডোনা সীমান্ত এলাকা থেকে এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া গ্রেপ্তারের কথা জানায় পুলিশ। সন্ধ্যা ৫টা ৫৫ মিনিটে কঠোর নিরাপত্তায় তাকে কানাইঘাট থেকে সিলেট পুলিশ সুপার কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়। এসময় বিক্ষুব্ধ জনতা আকবরের ফাঁসি চেয়ে স্লোগান দিতে থাকেন।

 

এরপর রাত পৌনে ৮টার দিকে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ নিহতের ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত পুলিশের বহিষ্কৃত উপ পরিদর্শক আকবর হোসেন ভূঁইয়াকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআর)-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

 

প্রসঙ্গত, গত ১০ অক্টোবর শনিবার মধ্যরাতে রায়হানকে নগরীর কাষ্টঘর থেকে ধরে আনে বন্দরবাজার ফাঁড়ি পুলিশ। পরদিন ১১ অক্টোবর ভোরে ওসমানী হাসপাতালে তিনি মারা যান। রায়হানের পরিবারের অভিযোগ, ফাঁড়িতে ধরে এনে রাতভর নির্যাতনের ফলে রায়হান মারা যান। ১১ অক্টোবর রাতেই রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার বাদী হয়ে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন।